জিল্যাব - ৬ :: ডার্ক সেন্সর বানাও, অন্ধকারে নিজেই জ্বলবে আলো!

জিল্যাব - ৬ :: ডার্ক সেন্সর বানাও, অন্ধকারে নিজেই জ্বলবে আলো!
English Feed :)
কেমন আছো সবাই?
আজকের এই ইলেক্ট্রনিক্স প্রোজেক্ট দিয়েই আমার ইলেকট্রনিক্সে হাতে খড়ি। <3 p="">হ্যাঁ, এটা একটা ডার্ক সেন্সর বা অন্ধকার সংবেদী ডিভাইজ।
এই ধরণের সার্কিট বেশ সহজ হয় বানাতে। যে কেউ এটা বানাতে পারে।
কিন্তু আমাদের ব্লগের জন্য, আমি আবার এটা বানালাম।



এই সার্কিটে আমি বিসি৫৪৭ এনপিএন ট্রাঞ্জিস্টর ব্যাবহার করেছি।



LDR
How It Works

















একটা এনপিএন ট্রাঞ্জিস্টর সুইচ করতে হলে পজিটিভ চার্জ দরকার হয়।
এবং সেন্সর হিসেবে আমি এলডিআর বা লাইট ডিপেন্ডেন্ট রিসিস্টর ব্যাবহার করেছি। এটি এক ধরণের ফটো রিসিস্টর।

এলডিআর এর রেজিস্ট্যান্স বা রোধকত্ব তার ওপরের আলোর উপস্থিতির ওপর নির্ভর করে।



যখন এলডিআর এর উপরে আলোর উপস্থিতি বেড়ে যায়, তখন এলডিআর এর রিসিট্যান্স অনেক কমে শূন্যের কোঠায় চলে যায়।
আবার যখন আলো কমে যায় তখন এর রোধকত্ব বেড়ে যায়। এবং প্রায় ১ মেগা ওহমের উপরে চলে যায়।

ট্রাঞ্জিস্টরে পজিটিভ বায়াস দিতে আমি একটা ১০০ কিলো ওহমের ভলিউম বা পটেনশিওমিটার লাগিয়েছি।
এবং এলডিআর দিয়ে গ্রাউন্ড বায়স দিয়েছি।

যখন এলডিআর এর উপরে আলো পড়ে তখন রোধ কমে যায় এবং পজিটিভ চার্জ ট্রাঞ্জিস্টর সুইচ না করে গ্রাউন্ডে চলে যায়। আর এলইডি বন্ধ থাকে।
আবার এলডিআরে ছায়া পড়লে এলডিআর এর রোধ বেড়ে যায় এবং পজিটিভ চার্জ আর গ্রাউন্ডে না যেয়ে বেজ সুইচ করে। আর এলইডি জ্বলে ওঠে।
এভাবে এটা দিয়ে অটোমেটিক নাইট লাইট বানানো যাবে।
নিচে এর ডায়াগ্রাম দিয়ে দিলাম। সব শেষে ভিডিও টিউটোরিয়াল আছে।

ছোট গেমস মজা বেশি(পর্ব-৩০): বাবল বার্ড

ছোট গেমস মজা বেশি(পর্ব-৩০): বাবল বার্ড
আস সালামু আলাইকুম। বাসা পরিবর্তন করার কারণে গত কিছু দিন সময় পাই নি। তাই একটু দেরিতেই লিখছি ত্রিশতম পোস্ট।

আজকের গেম

আজকে একটি সুন্দর গেম নিয়ে এসেছি অ্যান্ড্রয়েড গেমার দের জন্য। আজকের গেমটি দারুণ একটি ম্যাচ থ্রি পাজল গেম, বাবল বার্ড।
প্লে স্টোরে গেমটির ব্যবহারকারীরা একে রেট করেছে ৪.২। অর্থাৎ, বেশিরভাগ ব্যবহারকারীই পছন্দ করেছেন এই গেমটি।
গেমটি একটি সাধারণ ম্যাচ-থ্রি গেম হলেও এর রয়েছে নতুন নতুন দারুণ কিছু বৈশিষ্ট্য যা আপনার ভাল লাগবে।
Cover art

গেম সম্বন্ধে

গেমটিতে অনেকগুলো লেভেল রয়েছে। প্রথম দিকের লেভেল গুলো আপনার বেশ সহজ মনে হতে পারে। তবে পূর্ণ তিন তারা পেয়ে শেষ করা খুব সহজ হবে না। আর প্রায় ২৫ তম লেভেলে পৌছানোর পর গেমটি খুব কঠিন হয়ে উঠবে।
গেমটি একই সাথে একটি ম্যাচ থ্রি পাজল এবং শ্যুটিং গেম। ম্যাচ থ্রি বলতে সেই গেম গুলোকে বোঝানো হয় যেখানে একই রঙের তিন বা ততোধিক বস্তু ম্যাচ করতে হয়। এই গেমেও আপনাকে সেটিই করতে হবে। এ ধরণের গেম গুলো আমার সাধারণত খুব বেশি ভাল লাগে না। কিন্তু এই গেমটি ব্যতিক্রম। এখানে পাখি দের শ্যুট করে তিনটি বা এর বেশি পাখি মিলালে পাখিগুলো উধাও হয়ে যাবে। যত বেশি পাখি উধাও করতে পারবেন, পাবেন তত বেশি পয়েন্ট। এভাবে যত বেশি পয়েন্ট সংগ্রহ করবেন, তত বেশি তরকা পেয়ে লেভেল শেষ করতে পারবেন। তিন তারকা পেয়ে লেভেল গুলো শেষ করা খুব সহজ কখনোই হবে না।
গেম টিতে পাখি দের উধাও করতে করতে এক সময় একটি পাখির বাসার দেখা পাবেন। সেটিতে শ্যুট করার মাধ্যমে প্রতিটি লেভেল শেষ করতে হবে।
গেম টিতে কিছু লেভেল কয়েন দিয়ে আনলক করতে হবে। এই কয়েন আপনি ইন অ্যাপ পারচেজের মাধ্যমে কিনতে পারবেন। ভয় পেলেন? ভয় পাওয়ার কিছু নাই, প্রতিটি লেভেলে কয়েনে শ্যুট করার মাধ্যমেও আপনি কয়েন সংগ্রহ করতে পারবেন। কোন লেভেলে গিয়ে আটকে গেলে ৫০ কয়েনের বিনিময়ে ওই লেভেল স্কিপ করতে পারবেন। তাছাড়া কয়েন থাকলে গেমের শপ থেকে বোম, মাল্টি কালার বল আর ক্রুদ্ধ নীল পাখি (নাম গুলো আমার দেওয়া) খরিদ করতে পারবেন।
গেম টিতে প্রতিটি লেভেলে একটি লাইন দেখতে পাবেন। পাখি গুলো এই লাইন স্পর্শ করলে আপনি পরাজিত হবেন। গেমটিকে আরেকটু মজাদার করার জন্য আছে  বার্ড এক্সপেন্ডার, বার্ড ডাইয়েজ, ব্লক, বার্ড মাইন ও হুইরপুল। বার্ড এক্সপেন্ডারের কোন পাখিকে আঘাত করলে এর আশে পাশের খালি জায়গায় নতুন পাখি যোগ হবে। বার্ড ডাইয়েজের পাখিকে আঘাত করলে এর চারপাশের সব পাখি ওই একই রঙের পাখিতে পরিণত হবে। আর ব্লক রিমুভ করতে এর পরের পাখি গুলোকে উধাও করতে হবে। বার্ড মাইনে আঘাত করলে পাখি গুলো নিচে নেমে যাবে, যা কঠিন লেভেল গুলোতে খুব জটিল সমস্যা সৃষ্টি করবে। হুইরপুলে আঘাত করলে যে কোন ধরণের শট এটি শুষে নিবে।

এক নজরে

গেমের নামঃ বাবল বার্ড
বর্তমান ভার্সনঃ ১.২.৬
প্রকাশের তারিখঃ ২০ অক্টোবর ২০১৬
প্রয়োজনীয় এন্ড্রয়েড ভার্সনঃ ২.৩ অথবা উচ্চমানের
নির্মাতাঃ Ezjoy
আকারঃ ৮ মেগা বাইট
রেটিংঃ ৩+

ছোট গেমস মজা বেশি সিরিজ সম্বন্ধে

  • ১। পোস্ট করার পূর্বে প্রতিটি গেম চেক করে নেওয়া হয়। ভাল লাগা গেমগুলো নিয়েই পোস্ট করি।
  • ২। ডাউনলোড লিংক চেক করে পোস্ট দেওয়া হয়। তথাপি, এ সংক্রান্ত সমস্যায় আমি দায়ী থাকব না। নিজ দায়িত্বে ডাউনলোড করুন।
  • ৩। ডাউনলোডে সমস্যা হলে কমেন্টে জানান। আপডেট করে দেওয়া হবে ইংশাআল্লাহ।
  • ৪। এই পোস্টগুলো কপিকৃত নয়। সরাসরি অনুবাদও নয়। তবে বিভিন্ন ওয়েবসাইটের সাহায্য নেওয়া হয়ে থাকতে পারে। এই ক্রেডিট দেওয়া অনেক সময় সম্ভব হয় না।
  • ৫। ছবিগুলো অনেকক্ষেত্রে নিজের স্ক্রিণশট নেওয়া। অনেকক্ষেত্রে গুগলে সার্চ দিয়ে পাওয়া। এক্ষেত্রেও ক্রেডিট দেওয়া সম্ভব হয় না।
  • ৬। কেবলমাত্র ছোট এবং মজার গেমগুলোই পাবেন। বড়সড় কিছু পাবেন না।
  • ৭। প্রোফেশনাল গেমারদের জন্য মূলত এটি নয়।
  • ৮। সপ্তাহে ২-৩ টি পোস্ট করার চেষ্টা করা হয়।
  • ৯। প্রতি পোস্টে সাধারণত একটি করে গেম থাকবে।
  • ১০। ডাউনলোড সাইজ সাধারণত ৫-৫০ মেগাবাইট হবে। তবে এটি বেশি এমনকি কমও হতে পারে। তবে ৫ এমবির কম সাইজের ক্ষেত্রে সাধারণত একাধিক গেম থাকবে।
  • ১১। অনেক সময়ই পুরনো আমলের গেমগুলো এই সিরিজে অন্তর্ভূক্ত করা হয়। আবার নতুন রিলিজ হওয়া ছোটখাট গেমগুলোও পা্বেন।
  • ১২। সব বয়সের উপযোগী গেমই (অর্থাৎ, যেগুলো Everyone রেটিং পাওয়ার যোগ্য) কেবল পোস্ট করা হয়।

শেষ কথা

আশা  করছি, এই পোস্টের সব পাঠকদের মোবাইল ফোনেই এই গেমটি চলবে। গেমটি সবাই খেলে দেখবেন। পোস্টটি ভালো লাগলে কমেন্ট করতে ভুলবেন না। আর ভাল না লাগলে অবশ্যই জানাবেন কি করলে আমার পরবর্তী পোস্টগুলো আরো সুন্দর হবে। গেমটি খেলে কেমন লাগল জানাবেন। আরো জানাবেন, আমার এই সিরিজ কেমন লাগছে। কি ধরণের গেম গুলো আপনাদের বেশি প্রিয় সেগুলোও জানাবেন। আশা করছি সামনে আরো সুন্দর ও মানসম্মত গেম উপহার দিতে পারব আমার এই সিরিজে।
পরের পর্ব নিয়ে খুব শীঘ্রই আসছি ইংশা আল্লাহ। সবার সুস্থতা কামনা করে শেষ করছি আজকের এই পোস্ট। আগামী কাল আমার বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফল। সবাই আমার জন্য দুআ করবেন।
আল্লাহ হাফেজ।
 

Download Search Everything | সার্চ এভ্রিথিংক | 3G স্পিডে আপনার কম্পিউটারে ফাইল খুজুন !!!!!

 Download Search Everything | সার্চ এভ্রিথিংক | 3G স্পিডে আপনার কম্পিউটারে ফাইল খুজুন !!!!!
.

Search Everything সার্চ এভ্রিথিংক । 3G স্পিডে আপনার কম্পিউটারে ফাইল খুজুন!!!!!

আসসালামু আলাইকুম,

কেমন আছেন বন্ধুরা আশা করি সবাই ভাল আছেন। আজকে আমি আপনাদের সাথে একটি  কম্পিউটার সফটয়্যার নিয়ে আলোচনা করব। সফটয়্যারটির নাম হচ্ছে Search Everything। এটি একটি পিসি সার্চ ইঞ্জিন। এর দ্বারা আপনি খুব সহজেই আপনার নির্দিষ্ট ফাইলটি খুজে নিতে পারবেন আপনার কম্পিউটার  থেকে। তবে হ্যা আপনার ফাইলটির নাম  সঠিক ভাবে লিখে দিতে হবে। এর একটি সুবিধা হল আপনার কম্পিউটারে হাইট করা ফা্ইল ও শো করে।

 এটি ইনষ্টল করা খুবই সহজ। আশা করি ইনষ্টল করতে পারেন না এমন কেউ নেই । ঠিক মত ইনষ্টল করলে আপনার  সামনে এমন একটি উইন্ডো আসবে।
সফটয়্যারটি ডাউনলোড করতে এখানে ক্লিক
কোন ধরনের সমস্যা হলে কমেন্ট করে জানান এবং আপনার বন্ধুদের শেয়ার করে জানিয়ে দিন।
আবার ও আপনাদের মাঝে ফিরে আসবো নতুন কোন তথ্য নিয়ে।
ধন্যবাদ!!!!!
আমার সম্পর্কে
জানতে ফেসবুক 

জিল্যাব - ৫ :: ১ ওয়াট এলইডিএর ডিমার বানাও

জিল্যাব - ৫ :: ১ ওয়াট এলইডিএর ডিমার বানাও


আমার এক বন্ধু আমাকে এলইডি এর ব্রাইটনেস কন্ট্রোলার তৈরি করতে বলেছিলো।
তার টেবিল ল্যাম্পের ব্রাইটনেস কন্ট্রোল করার জন্য।
সে ৫৫৫ আইসি দিয়ে পিডব্লিউএম বা পালস ওয়াইডথ মডুলেটর সার্কিট তৈরির চেষ্টা করেছিলো, কিন্তু সামান্য কাজের জন্য একটা কমপ্লেক্স সার্কিট সে তৈরি করতে চাচ্ছিলো না।
আমি তাকে ভলিউম (পটেনশিওমিটার) এবং ট্রান্সজিস্টার ব্যাবহার করে কাজটা করতে বলেছিলাম।



এই ডিমারটি ১ ওয়াটের একটা এলইডি ড্রাইভ করতে পারে।

এই এলইডি এর কালার টেম্পারেচার বেশি তা চোখের জন্য বেশ আরামদায়ক, আমি তাই আমার টেবিল ল্যাম্পের টিউব রিপ্লেস করে এগুলো বসিয়েছি।
1w LED with Heatsink

এই ১ ওয়াট এলইডি নিয়ে কিছু তথ্য,

Forward Voltage:3.0V – 3.4V
Angle:110 deg
Luminous Flux (lm):110 – 130
Color Temp:2700K – 3300K





এখানে আমি বিসি৫৪৭ ব্যাবহার করেছি কারণ এর ব্যাবহার এবং অপারেশন সহজ। কিন্তু যেকোনো এনপিএন ট্রানজিস্টার ব্যাবহার করা যাবে।
একটা এনপিএন ট্রাঞ্জিস্টরের সুইচ করতে পজিটিভ ভোল্টেজ লাগে।
যখন ট্রাঞ্জিস্টরের বেস থেকে পজিটিভের সাথে যুক্ত তারের রোধ বা রেসিস্ট্যান্স গ্রাউন্ডের বা নেগেটিভের সাথে লাগানো তার হতে বেশি থাকে তখন ট্রাঞ্জিস্টর দুর্বল বা হালকা আউটপুট দেয়।
আবার এর উলটো বা নেগেটীভের সাথে রিসিসট্যান্স বেশি হলে তুলনামুলক বেশি আউটপুট ভোল্টেজ দেয়।
তাই আমরা দুই পাশের রিসিস্ট্যান্স ভ্যারি করার জন্য পটেনশিওমিটার ব্যাবহার করেছি।
আমি এই প্রোজেক্টের একটা ভিডিও করে রেখেছি, তোমরা চাইলে তা দেখতে পারো।

Project Video:



Project Image:


ফেসবুক মেসেঞ্জারে যুক্ত হলো ‘ইভেন্ট রিমাইন্ডার’

ফেসবুক মেসেঞ্জারে যুক্ত হলো ‘ইভেন্ট রিমাইন্ডার’



ফেসবুক মেসেঞ্জার অ্যাপে নতুন ফিচার যুক্ত করা হয়েছে। ‘রিমাইন্ডার’ নামের নতুন এই ফিচারের মাধ্যমে অ্যাপের মধ্যে যেকোনো নির্দিষ্ট ইভেন্টের রিমাইন্ডার দিয়ে রাখতে পারবেন ব্যবহারকারীরা। 
পরবর্তীতে মেসেঞ্জার ঐ ইভেন্টের কথা এলারমের মতো মনে করিয়ে দিবে।

ব্যবহারকারী ‘আগামীকাল সকাল ৭টায় ঘুম থেকে উঠতে হবে’ এই মেসেজ মেসেঞ্জারে লেখার সাথে সাথে অ্যাপটি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ঐ তারিখ ও সময়ের রিমাইন্ডার সেটিং অপশন দেখাবে। ফিচারটি রিমাইন্ডার সেট করেই সীমাবদ্ধ থাকে না, ব্যবহারকারীর ইচ্ছেমতো তারিখ ও সময় পরিবর্তন করার ক্ষমতাও রাখে।

মেসেঞ্জার বন্ধ করে স্মার্টফোনের ক্লক অ্যাপ্লিকেশনে গিয়ে অ্যালার্ম ঠিক করার ঝক্কি না নিয়ে খুব সহজেই অ্যাপটিতে তারিখ ও সময় লিখে রিমাইন্ডার ঠিক করার সুযোগ পাবেন মেসেঞ্জার ব্যবহারকারীরা।

priyo.com

জিল্যাব - ৪ :: চার ওয়াট পাওয়ারের একটা ইউএসবি ল্যাম্প বানাও

জিল্যাব - ৪ :: চার ওয়াট পাওয়ারের একটা ইউএসবি ল্যাম্প বানাও









আবার এলাম আমি, আরেকটি ইউএসবি গ্যাজেট নিয়ে। এটি একটি ৪ ওয়াটের ইউএসবি এলইডি ল্যাম্প।
এরকম ল্যাম্প অত্যন্ত কাজের।
আমরা এগুলো যেকোনো স্থানে ইউএসবি পাওয়ার ব্যাঙ্ক, ল্যাপ্টপ, ওটিজি বা পাওয়ার সাপ্লাই দিয়ে চালাতে পারি।
এর ক্ষমতাও বেশি, ৪ ওয়াট। একটি শক্তিশালী টেবিল ল্যাম্পের মতো।
রাতের বেলা যারা জেগে জেগে কাজ করো, তারা এটা ব্যাবহার করতে পারো। কারন এর ক্ষমতা এনার্জি সেভিং লাইট (সিএফএল) থেকে কম, যা আরও বেশি বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী।
ভিডিও টিউটোরিয়াল দেখতে পারো অথবা পোস্টের শেষে ইম্বেড করা আছে সেটি


Things you need

এই ইউএসবি গ্যাজেট বানাতে তোমার লাগবে,

  1. সলিড লোহার তাঁর
  2. কানেকশান দেওয়ার তাঁর (সলিড হলে ভালো)
  3. ১০ ওহমের রিসিস্টর
  4. ভেরো বোর্ড
  5. চারটি এক ওয়াটের সিঙ্গেল চিপ এলইডি (পাথর বাতি)
  6. ইউএসবি ডাটা ক্যাবল
  7. রোল অন পারফিউমের বোতলের রোল অন বল
এখানে ডায়াগ্রাম
Schematic






ছোট গেমস মজা বেশি(পর্ব-২৯): স্টিক ক্রিকেট(৪০ মেগাবাইট/অ্যান্ড্রয়েড)(পিসি ভার্সন অনলাইন গেম সংযুক্ত)+স্টিক ক্রিকেট প্রিমিয়ার লীগ

ছোট গেমস মজা বেশি(পর্ব-২৯): স্টিক ক্রিকেট(৪০ মেগাবাইট/অ্যান্ড্রয়েড)(পিসি ভার্সন অনলাইন গেম সংযুক্ত)+স্টিক ক্রিকেট প্রিমিয়ার লীগ
আসসালামু আলাইকুম। শীতের সকালের গরম গরম ভাপা পিঠার শুভেচ্ছা।

স্টিক ক্রিকেট

আগের পোস্টের ঘোষণা অনুযায়ী আমি আজ নিয়ে এসেছি একটি এন্ড্রয়েড গেম, স্টিক ক্রিকেট। এটার অনলাইন গেমও আছে পিসির জন্য। বলছিনা, কল অফ ডিউটি এর আধুনিক ভার্সনগুলো, জিটিএ ৪, জিটিএ ৫, ওয়াচ ডগসের মত গেমগুলো কখনো আমার খেলতে ইচ্ছা হয় না। কিন্তু সত্যি বলছি, আমার ২ জিবি র‍্যামের পিসিতে এগুলো চলে না বলে কখনো মন খারাপ হয়নি। সব ইচ্ছা তো আর পূর্ণ হয় না।
কিন্তু এবার সত্যি দুঃখ হয়েছে, যখন জেনেছি আপকামিং ডন ব্র্যাডম্যান ক্রিকেট ১৭ আমার পিসিতে সাপোর্ট করবে না বা বর্তমানের জনপ্রিয় অ্যান্ড্রয়েড ক্রিকেট গেম, ওয়ার্ল্ড ক্রিকেট চ্যাম্পিয়নশিপ আমার মায়ের মোবাইলের ৫১২ মেগাবাইট র‍্যামে সাপোর্ট নিবে না। শুধু এটা খেলার জন্য ব্লুস্টাক নিসিলাম। কিন্তু ব্লুস্টাক দিয়ে পিসিতেও চলল না। আর ২ জিবি র‍্যামের পিসিতে ব্লুস্টাকই তো সাপোর্ট নিতে চায় না। দুঃখ এত বেশি, পকেটে আটে না :'(আর চাইলেই তো পিসি আপডেট করে ৮ জিবি র‍্যাম লাগিয়ে নিতে পারি না বা নতুন ফোনও কিনতে পারি না।
তাই আবার লো কনফিগ গেমের পথেই হাঁটি। থাউক, লাগবে না ওয়ার্ল্ড ক্রিকেট চ্যাম্পিয়নশীপের গ্রাফিক্স, বোলিং, ডিআরএস, কমেন্ট্রি। আমার স্টিক ক্রিকেটই আমার জন্য ভাল। ইহা পিসি এবং এন্ড্রয়েড উভয় প্লাটফর্মেই খেলা যায়।
এই গেমটার একটা বৈশিষ্ট্য হল, কেবল ব্যাটিংই করতে পারবেন। বোলিং নাই, কমেন্ট্রি নাই, ওয়াইড নাই, নো-বল নাই, বিভিন্ন এঙ্গেলের ক্যামেরা নাই, রিয়েলাস্টিক গ্রাফিক্স নাই, নাইয়ের লিস্ট অনেক বড়। কিন্তু, গেমটি খেলতে বোর হবেন না কখনোই!
Cover art
ভাবছন, এটা কেমন গেম? না খেললে বুঝবেন না এই গেমের মজা।
সব ক্রিকেট গেমের একটা বড় সমস্যা হল, ব্যাটিং খুব সোজা। টার্গেট পার করে আরো ওভার বেঁচেই থাকে। তাই সব ডেভেলোপার চেষ্টা করে ব্যাটিং কঠিন করতে। কিন্তু কিসে কি? যতই কঠিন করুক, গ্যাপ থেকেই যায়। হয়ত, দুই তিনটা নির্দিষ্ট শট আয়ত্বে আনলেই বলে বলে ৬ হবে।
এই গেমটা এ দিক দিয়ে ব্যতিক্রম। ডেভেলোপাররা ব্যাটিংকে সহজ না করে অন্য রাস্তায় হেঁটেছে। সরাসরি বলেই দিয়েছে, 'HIT EVERY BALL FOR SIX."
   Stick Cricket- screenshot
এটা সত্য, সব বলেই ছয় তো ঠিকই মারতে পারবেন। কিন্তু প্যাচটা অন্যখানে। ওভারে ২৭-২৮ যখন রিকোয়ার্ড রেট দেখবেন, তখন এই মজাটা ফুরুত হয়ে যাবে।
গেমটিতে ৩৬০ ডিগ্রি শট নাই। আপনার স্ক্রিণের দুই দিকে দুটো বাটন পাবেন। সেখানে সময়মত সঠিক দিকে ট্যাপ করেই দেখাতে হবে চার ছক্কার ফুলঝুরি। এটাও কিন্তু সবসময় খুব সহজ না। যখন পেসাররা আগুনের গতিতে বল ছুরবে, আর স্পিনাররা অফ সাইডের বল লেগ সাইডে ঘুরিয়ে দিবে, তখন টের পাবেন।
গেমের ডেভেলোপাররা একটি কথা লিখে দিয়েছেন প্লে স্টোরে গেমের বর্ণনায়, 'Easy to play, hard to master'. কথাটা মাথায় রেখেই খেলতে হবে।
গেমটির অ্যান্ড্রয়েড ভার্সনে বেশ কিছু আলাদা আলাদা মোড আছে, আর পিসির জন্য রয়েছে ভিন্ন ভিন্ন গেম। অ্যান্ড্রয়েডের গেমটি ফ্রি হলেও ফ্রি গেমটিতে প্রায় সবকিছুই লক করা তাই আনব্লকড ভার্সন ডিয়েছি আমি(ডাউনলোড লিংক পোস্টের শেষে)। নিচে গেমের মোডগুলো এবং প্রত্যেকটি মোডের পিসিতে খেলার জন্য অনলাইন গেমের লিংক দেওয়া হল।

বিশ্ব দমন(World Domination)

হারিয়ে দিন পৃথিবীর সব দলকে! এখানে আপনি খেলবেন অল স্টারস দলের হয়েছে। যে দলটা তৈরি হয়েছে বিশ্বের সর্বকালের সেরাদের নিয়ে। এখানে কিন্তু আপনাকে নিজের দেশের বিপক্ষেও খেলতে হবে! পিসিতে খেলতে এখানে যান।

সব তারকাঘাত(All Stars Slog)

এখানে আপনি আপনার দেশকে নিয়ে খেলতে পারবেন বিশ্বের সর্বকালের সেরাদের দল অল স্টারসের বিপক্ষে। পিসিতে খেলতে এখানে যান।

বিশ্বকাপ(World Cup Edition)

বিশ্ব ক্রিকেটের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ আসরে নেমে পড়ুন আপনার দলের জয় নিশ্চিত করতে! ৫০ ওভারের বদলে অবশ্য খেলতে হবে ৫ ওভার। পিসিতে খেলতে এখানে যান।

বিশ্ব চা-২(World T-2)

এখন কি আর সেই যুগ আছে? এখন টি-টুয়েন্টি দেখতে মানুষ হাঁপিয়ে যায়। তাই নেমে পড়ুন এই বাংলার মাটিতে(গেমের বর্ণনা অনুযায়ী, তবে আপনার পরিচিত স্টেডিয়ামগুলো খুঁজবেন না যেন!) এক উত্তেজনাকর টি-টু বিশ্বকাপের জন্য। পিসিতে খেলতে এখানে যান।

দক্ষতা পরীক্ষা(Skill Test)

১৫টি দক্ষতার পরীক্ষা দিয়ে যাচাই করুন আপনি গেমটির গুরু হতে পেরেছেন কিনা। বলা হয়েছে, ১৫ টি টেস্ট জিতলে কোচের পক্ষ থেকে একটি পুরস্কার আছে। সেটি কি আমি জানি না। কেন না ১০ নাম্বার দক্ষতা পরীক্ষাতে গিয়েই আটকে গেছি :( পিসিতে খেলতে এখানে যান।

মুক্ত অনুশীলন(Free Practice)

আপনার দক্ষতায় শান দিন! সেজন্য প্রাকটিস তো অবশ্যই প্রয়োজন! পিসিতে খেলতে এখানে যান।

দুই খেলোয়াড়(Two Player)

সবচেয়ে আগ্রহজনক ফিচার সম্ভবত এটি। আপনার ও আপনার বন্ধুর(বা দুশমনের) মোবাইলে গেমটি ইন্সটল করে নিন। এরপর নীল দন্ত(Bluetooth) চালু করে নেমে পড়ুন! আমি ট্রাই করে দেখতে পারি নি অবশ্য। কারণ এই মোডে খেলার মত আরেকজনকে খুঁজে পাইনি :'(পিসির জন্য এটি নেই।

ডাউনলোড

সম্পূর্ণ গেমটি এন্ড্রয়েডের জন্য ডাউনলোড করুন এখান থেকে।

স্টিক ক্রিকেট প্রিমিয়ার লীগ

স্টিক ক্রিকেট প্রিমিয়ার লীগ গেমটি ডাউনলোড করলে আপনি প্রিমিয়ার লীগ অস্ট্রেলিয়া (বিগ ব্যাশ) ও প্রিমিয়ার লীগ ইন্ডিয়া (আইপিএল) মোডে খেলতে পারবেন। আপনার অধিনায়ককে প্রস্তুত করুন, ইচ্ছা হলে দলের জন্য ক্রয় করুন তারকা খেলোয়াড়দের বা ব্যক্তিগত কোচকে, অসৎপন্থায় জিততে চাইলে ইন্ডিয়ান লীগে ম্যাচ ফিক্সার :P দের সাথেও যোগাযোগ রাখুন অথবা অস্ট্রেলিয়ান লীগে যোগাযোগ করুন ডাক্তারের সাথে, তিনি কিছু অর্থের বিনিময়ে আপনার জন্য বিপক্ষ দলের  খেলোয়াড়দের দুর্বল করার চিকিৎসা করে দিবেন :P ভাল তো, ভাল না?

ডাউনলোড

বিদায়

কেমন লাগলো আজকের এই পোস্ট এবং গেমগুলো? কমেন্ট বক্স কিন্তু অধীর আগ্রহে অপেক্ষারত আপনার কমেন্ট বক্সের জন্য। তাকে নিরাশ করবেন না প্লিজ :) আপনাদের প্রতিটি কমেন্ট আমার এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা।
আজকের পোস্ট এখানেই শেষ করছি।
আল্লাহ হাফেজ।

জিল্যাব - ৩ :: IC 555 দিয়ে বাই পোলার এলইডি ড্রাইভার বানাও

জিল্যাব - ৩ :: IC 555 দিয়ে বাই পোলার এলইডি ড্রাইভার বানাও

৫৫৫ আইসি দিয়ে বাই পোলার এলইডি ড্রাইভার



আজকের টিউটোরিয়ালে আমরা ৫৫৫ টাইমার আইসি ইউজ করে একটি বাই পোলার এলইডি ড্রাইভার সার্কিট তৈরি করতে শিখবো।
এই প্রোজেক্টটি যারা কেবল নতুন এবং আগ্রহী তাদের জন্য, অন্যথা কমেন্টে "আমি এটা জানি" কিংবা "সব্বাই জানে এটা" বইলা আওয়াজ না করার জন্য বিনীত ভাবে অনুরোধ করছি।
কিন্তু টিউটোরিয়াল শুরুর আগে আমাদের বাই পোলার এলইডি নিয়ে জানা দরকার।

বাই পোলার এলইডি হলো এমন এক ধরনের এলইডি যা দুইটি পোলারিটীই কাজে আসে, অর্থাৎ এতে দুইভাবে কারেন্ট বায়াস দিলে দুইভাবে কাজ করে থাকে।
যেমন পজিটিভ এবং নেগেটিভ বায়াস দিলে হলুদ এবং নেগেটিভ ও পজিটীভ (উলটে দিলে) বায়াস দিলে লাল আলো নিঃসরণ করে।
YELLOW for PN
RED for NP
Bi Polar LED Schematic Symbol

আশা করি বুঝতে পেরেছো বাই পোলার এলইডিএর কাজ? 
এটা মুলত টিভি, কম্পিউটার ইত্যাদি ডিভাইজের ডায়াগনস্টিক এলইডি হিসেবে ব্যাবহার করা হয়।

একটা সাধারন বাই পোলার এলইডি ড্রাইভার বানানোর জন্য তোমরা ৫৫৫ আইসি ইউজ করতে পারো যা আমি নিচের ভিডিও টিউটোরিয়ালে ইউজ করেছি।




এই সার্কিটে ৫৫৫ আইসিতে ২ নাম্বার পিনে, যার নাম "ট্রিগার", সেখান থেকে একটি ক্যাপাসিটর গ্রাউন্ডে বা নেগেটিভে চলে গেছে।
এর দ্বারা আমরা আউপুট সিগন্যাল নিয়ন্ত্রন করতে পারি।
ক্যাপাসিটরের মান বাড়লে আউটপুটের গতি কমবে, এবং মান কমলে আউটপুটের গতি বাড়বে।
এখানে ৫৫৫ আইসিটি, অ্যাস্টেবল মোডে কাজ করছে, যার মানে একটি ক্লিন আউটপুট, যার কোনো মাঝে মাঝে বিরতি নেই। একনাগাড়ে করে যাবে।

Bi Polar LED


Circuit Schematic


Circuit with Potentiometer





তুমি যদি ভলিউম (পটেনশিওমিটার) দিয়ে স্পীড কন্ট্রোল করত্যে না চাও তবে নিচের ডায়াগ্রাম ব্যাবহার করতে পারো।
Circuit without Potentiometer

ছোট গেমস মজা বেশি(পর্ব-২৮): বাস ড্রাইভার

ছোট গেমস মজা বেশি(পর্ব-২৮): বাস ড্রাইভার
আসসালামু আলাইকুম। কেমন আছেন? আশা করছি আল্লাহ তায়ালার অশেষ রহমতে সবাই ভাল এবং সুস্থ আছেন। আমিও আলহামদুলিল্লাহ. আল্লাহ ভাল রেখেছেন।

আজকের গেম

আজ আমি নিয়ে এসেছি ২০০৭ সালে রিলিজ পাওয়া একটি গেম, বাস ড্রাইভার। এই গেম খেললে আপনি অবশ্যই তীব্র গরমের দিনে ভাঙা রাস্তায় ড্রাইভাররা কত কষ্টে বাস চালায় বুঝতে পারবেন না, কিন্তু এটুকু বুঝতে খুব বেশি কষ্ট হবে না যে, বাস চালানোটা খুব বেশি সহজ কাজও নয়। যদিও এখানে আপনাকে উঁচুনিচু রাস্তায় আঁকাবাঁকা পথে চলতে হবে না, রাস্তায় খুব যানজটও নেই বাংলাদেশের মত, তবুও সময়মত দুর্ঘটনা না ঘটিয়ে যাত্রীদের পৌছে দেওয়ার কাজটা খুব সহজ নয়। গেমটি তৈরি করেছে আমাদের স্মৃতির পাতায় অমর এসসিএস সফটওয়্যার। পাবলিশ করেছে এসসিএস সফটওয়্যার ও মেরিডিয়ান ফোর।
 

এক নজরে

গেমের নাম
বাস ড্রাইভার
ডেভেলোপার
SCS Software
পাবলিশার
Meridian4
প্লাটফর্ম
আইওএস
মাইক্রোসফট উইন্ডোজ
ওএস এক্স
প্রকাশের তারিখ
২২শে মার্চ ২০০৭ (উইন্ডোজ)
ধরণ
গাড়ি চালনা

গেম সম্পর্কে

এই গেমে আপনার কাজ বাস চালিয়ে যাত্রীদের সময়মত তাদের গন্তব্যে পৌছে দেওয়া। প্রথমে কাজটি খুব সহজ হবে না।
  Bus Driver Screenshot 1 
 প্রচুর এক্সিডেন্ট হবে আর নিয়মগুলো বুঝতে কিছুটা সময় লাগবে। এক্সিডেন্ট করলে বা কোন কিছুতে ধাক্কা দিলে বাসের যাত্রীরা নাখোশ হবে এবং পয়েন্ট কাটা যাবে। আবার বিভিন্ন নিয়ম কানুনও মেনে চলতে হবে। রাস্তায় লাল বাতি জ্বললে থামতে হবে, নাহলে ২০০ পয়েন্ট ঘ্যাচাং হয়ে যাবে। সময়মত গাড়ি চালাতে হবে। সময়ের পূর্বে গাড়ি ছাড়া যাবে না। এরকম বিভিন্ন নিয়ম মেনে চলতে হবে। নিয়ম মানলে পয়েন্ট পাবেন আর যাত্রীরা থাকবে হাসিখুশি।
 
বিভিন্ন ধরণের রাস্তায় বাস চালাতে হবে। তুষারঘেরা রাস্তায় গাড়ি চালাতে পাবেন অন্য রকম অনুভূতি।
  Image result for Bus Driver Game 
 আর চালাতে পারবেন বিভিন্ন ধরণের বাস। বিআরটিসির মত(!) ডাবল ডেকার বাসও আছে গেমটিতে।
  Image result for Bus Driver Game   
গেমটিতে কাঠিন্যের ভিত্তিতে ৬ টায়ারে ভাগ হয়ে ৬ টি করে মোট ৩৬ টি রুট আছে। পূর্বের টায়ারগুলোতে ভাল করে পরবর্তীগুলো আনলক করতে হবে।

খেলার নিয়ম

গেমের ভেতরে তো দেওয়াই আছে। আমি এখানে কন্ট্রোলগুলোর একটি স্ক্রিনশট দিয়ে দিলাম। চাইলে পরিবর্তন করে নিতে পারবেন। এছাড়াও কন্ট্রোলার দিয়ে খেলা যাবে।
 

আমার রেটিং

আমার কাছে এই গেমটি বেশ ভাল লেগেছে। গেমটি নিয়ে আমার রেটিং- গ্রাফিক্স: ৭/১০ কন্ট্রোল: ৮/১০ অভারঅল: ৭/১০(এখানে গ্রাফিক্স এবং কন্ট্রোল ব্যাতীত অন্যান্য বিষয়ও বিবেচনা করা হয়েছে।)

ডাউনলোড

গেমটি যদি ভাল মনে হয়, তাহলে ডাউনলোড করে গেমটি খেলে দেখুন। গেমটির সাইজ অবশ্য একটু বড়, ৭৮ মেগাবাইট। কিন্তু খুব বেশি না, নয় কি?

আপনার মতামত

কেমন লাগলো আজকের এই গেমটি? আর কেমন লাগছে আমার এই সিরিজ? আজকের পোস্ট, আজকের গেম, এই সিরিজ প্রভৃতি সংক্রান্ত্র আপনার মতামত জানতে অপেক্ষায় আছি আমি এবং নিচের কমেন্ট বক্স। আশা করি আমাদের নিরাশ করবেন না। আপনার মতামত কমেন্ট করতে ভুলবেন না। ছোট গেমস মজা বেশি সিরিজটি আস্তে আস্তে এগিয়ে চলেছে। আমি এটাকে আরো এগিয়ে নিতে চাই। সেজন্য আপনার পছন্দের এন্ড্রয়েড বা পিসির ছোটখাট গেমগুলোর কথা কমেন্ট বক্সে জানাতে পারেন। সম্ভব হলে সেগুলো নিয়ে পোস্ট করে সবার সাথে শেয়ার করব।

আগামী পর্বগুলো

ইচ্ছা আছে আগামী কিছু পর্বে এন্ড্রয়েড গেমস থাকবে। তাই এন্ড্রয়েড ব্যবহারকারীরা প্রস্তুত থাকুন!

ছোট গেমস মজা বেশি সিরিজ সম্বন্ধে

জিটিএ ফাইভ আর ওয়াচ ডগসের যুগে হয়ত আমার এই সিরিজ বড়ই বেমানান। কিন্তু আমাদের সবার পক্ষে তো আর এসব গেমগুলো খেলার উপযোগী পিসি নেই, বা এগুলোর ইভেন পাইরেটেড কপি কেনার বা ডাউনলোড করার সামর্থ্য নেই। আর নতুন যা কিছুই আসুক না কেন OLD IS GOLD. তাই নতুন ছোটখাট গেমগুলো এবং পুরনো কালের গেমগুলো নিয়ে এগিয়ে চলেছি আমার সিরিজ, "ছোট গেমস মজা বেশি"।

বিদায়!

আজকের পোস্ট আমি এখানেই শেষ করছি। আশা করি দ্রুতই আবার ফিরে আসব। আল্লাহ তায়ালা আমাদের সবাইকে ভাল ও সুস্থ রাখুক এই কামনা করছি। আল্লাহ হাফেজ।

আমার চোখে সেরা ১১ ব্লগার টেম্পলেট। [পর্ব ১]

আমার চোখে সেরা ১১ ব্লগার টেম্পলেট। [পর্ব ১]
আসসালামু আলাইকুম।
আশা করি সবাই ভাল আছেন। আমার মত যারা ব্লগিং এ নতুন তারা সবসময়ই একটা কমন সমস্যায় পরেন, আর তা হল ব্লগ বা ওয়েবসাইটের থীম/টেম্পলেট নির্বাচনের সমস্যা! আমি কি ভুল বললাম? আপনি সাইট যেখানেই হোস্ট করুন না কেন (ব্লগার/ওয়ার্ডপ্রেস/জুমলা) আপনার সবার আগে দরকার একটি এসইও ফ্রেন্ডলী সেইসাথে স্টাইলিস্ট ডিজাইনের থীম যার মাধ্যমে আপনি ভিজিটরদের মনযোগ আকর্ষন করতে পারেন। আমরা সাধারণত নিজেদের ব্লগের থীম নির্বাচনের আগে গুগল মামার কাছে সাহায্য চাই এবং হাজার হাজার থীম থেকে দুঃশ্চিন্তায় পরে যাই যে কোনটা থেকে কোনটা ব্যবহার করা যায়! আমি আমার নিজের সাইট এর ব্যপারেও ঠিক একই সমস্যা ফেস করেছি। আবার কয়েকজন বড় ভাইয়ের ব্লগ ডিজাইন করে দিতে গিয়েও একই সমস্যায় পরি। এই অভিগ্গ্তা গুলো থেকেই কিছু কিছু ব্লগার টেম্পলেট ও ওয়ার্ডপ্রেস থীম আমার মনে ধরেছে যেগুলো আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করতে চাই। আর তাই সেরা ১১ টি ব্লগার টেম্পলেট নিয়ে প্রথম সিরিজটি শুরু করছি।
আমি শুধু ডেমো আর ডাউনলোড লিংক দিবোনা, প্রত্যেকটা টেম্পলেট এর ছোট্ট করে রিভিউ দেয়ার চেস্টা করব। আশা করি এই টেম্পলেটগুলো আপনাদের অনেক পছন্দ হবে এবং সেইসাথে আপনাদের সময় ও কস্ট অনেকটা লাঘব করবে।

তাহলে প্রথম পর্ব শুরু করা যাক
 টেম্পলেট ১ঃ Avada For Blogger
টেম্পলেটের নাম: Avada For Blogger
 প্লাটফর্ম: ব্লগার 
রিলিজ : ৩১ ডিসেম্বর, ২০১২ 
মালিকানা : www.templateism.com 
লাইসেন্স : ক্রিয়েটিভ কমন

আভাডা ফর ব্লগার একটি অত্যন্ত চমৎকার ব্লগার/ব্লগস্পট টেম্পলেট। এটি মুলত বহুল বিক্রিত ওয়ার্ডপ্রেস থীম আভাডা থেকে এডাপ্ট করা হয়েছে। টেম্পলেটটি সম্পূর্ন রেসপন্সিভ অর্থাৎ যেকোন সাইজের স্ক্রিন অনুযায়ী এটি নিজেকে মানিয়ে নিতে পারবে। এই চমৎকার ডিজাইনের টেম্পলেট টি দিয়ে আপনি ইচ্ছা করলেই portfolio, corporate, business, blog, products, যেকোন টাইপের ওয়েবসাইট বানিয়ে ফেলতে পারেন খুব সহজেই। সব থেকে মজার বিষয় হচ্ছে এত কাজের কাজী টেম্পলেট টির ওজন খুবই কম এবং পেজএর লোড স্পীড ও অনেক ভাল।

স্ক্রীনশটঃ
যে যে কারনে আমার চোখে সেরাঃ

রেসপন্সিভ ডিজাইন: টেম্পলেট টি সম্পূর্ন রেসপন্সিভ। তাই স্ক্র্রীন সাইজ যেমনই হোকনা কেন আপনার ব্লগ পড়তে ভিজিটরের কোন সমস্যাই হবেনা। ফিচার ফোন থেকে শুরু করে পিসি ব্যবহারকারী সকল ভিজিটরকেই আপনার ব্লগ আকর্ষণ করতে সক্ষম হবেই। 

এসইও ফ্রেন্ডলীঃ এই ব্লগার টেম্পলেটটি অনেক সার্র্চ ইন্জিন বান্ধব। এটির পেজ স্পীড ও চমৎকার। Google Page speed এর হিসেব মতে এটির মার্ক ১০০ এর মধ্যে ৯৩!

ওয়ার্ডপ্রেস লুকঃ আপনার ব্লগ দেখে কেউ বুঝতেই পারবেনা এটি ব্লগারে হোস্ট করা। এটিকে সেল্ফ হোস্টেড ওয়ার্ডপ্রেস সাইটের মতই দেখাবে প্রায় ! হেডারঃ সিম্পল কিন্তু চমৎকার একটি হেডার। মাল্টি সাইটের জন্যও পার্ফেক্ট।

ফাস্ট ও ফ্রেশ ড্রপডাউন মেনুঃ টেম্পলেটের ড্রপডাউন মেনুটি সত্যিই চমৎকার।

অটো থাম্ব ও রিডমোরঃ ডিফল্ট টেম্পলেট গুলোর মত এটি পুরো টিউন হোমপেজ এ দেখায়্না। বরং সয়ংক্রিয় ভাবে ছোট একটা সামারীর পর "Read More' বাটন দেখা যায় এবং প্রত্যেকটা টিউনেই অটো থাম্বনেইল থাকে।

অন্যান্য বৈশিষ্ট্য সমুহঃ একটি সাইডবার (ডান),দুই কলামের ব্লগ লেআউট,তিন কলাম বিশিষ্ট ফউটার, Fixed Width, Light Greenish Color Scheme, থ্রেড টিউমেন্টিং সিস্টেম ইত্যাদি।

আমি এতক্ষণ আমার ভাল লাগা বিষয়্গুলো আপনাদের সামনে তুলে ধরলাম। আপনি ইচ্ছা করলে টেম্পলেটটির লাইভ ডেমো দেখতে পারেন এখান থেকে। ভাল লাগলে ডাউনলোড করুন এখান থেকে। যদি টিউনটি কোন উপকারে আসে তবে টিউমেন্ট করতে ভুলবেননা। সবাইকে ধন্যবাদ।

জিল্যাব - ২ :: খালি পারফিউমের বোতল দিয়ে সোল্ডারিং আয়রন হোল্ডার বানাও

জিল্যাব - ২ :: খালি পারফিউমের বোতল দিয়ে সোল্ডারিং আয়রন হোল্ডার বানাও

Grab The English Feed of this post :D





আরেকটি ভিডিও টিউটোরিয়াল নিয়ে এলাম আমি। এবার আমি দেখাবো কিভাবে একটি খালি পারফিউমের ক্যান থেকে সল্ডারিং আয়রন হোল্ডার তৈরি করা যায়। আশা করি ভিডিও ভালো লাগবে। এখানে লেখার মতো কিছুই নেই, তাই লিখলাম না :/



কোনো প্রশ্ন থাকলে কমেন্ট করতে পারো।

Tags: DIY, Soldering Iron, Soldering Iron Holder, GLab

শেষ হলো "ল্যাপটপ মেলা ২০১৬"

শেষ হলো "ল্যাপটপ মেলা ২০১৬"
আবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে শুরু হলো ল্যাপ্টপ মেলা।
এবারের স্লোগান ‘প্রযুক্তিতে মুক্তি’। এবারের মেলায় একটি মেগা প্যাভিলিয়ন, ছয়টি প্যাভিলিয়ন, ছয়টি মিনি প্যাভিলিয়ন ও ৪৪টি স্টলে দেশী-বিদেশী শীর্ষস্থানীয় গ্যাজেট ও আইটি ডিভাইজ নির্মাতা ও বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের সর্বশেষ বাজারে আনা ল্যাপটপ প্রদর্শন ও বিক্রি করছে।
এবারের মেলায় এসার, আসুস, ডেল, এইচপি, লেনোভো, ওয়ালটন, লাভা, অ্যাভিরা, আই-লাইফ, ইসেট, রাপ্পো, লিনেক্স, রিভসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ড অংশ নিচ্ছে।
ল্যাপটপের পাশাপাশি পাওয়া যাচ্ছে ট্যাবলেট কম্পিউটার, ইন্টারনেট সিকিউরিটি প্রোডাক্ট ও প্রয়োজনীয় স্মার্ট গ্যাজেট।
বিশেষ ছাড়, উপহারের পাশাপাশি মেলায় বেশ কয়েকটি নতুন মডেলের ল্যাপটপের মোড়ক উম্নোচন করা হচ্ছে।
গত বৃহস্পতিবার আনুষ্ঠানিকভাবে মেলার উদ্বোধন করেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু। 
এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকেছিলেন বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার ও বিসিএস সভাপতি আলী আশফাক।

এবারের মেলায় পাওয়া যাচ্ছে রিভ সিস্টেমসের তৈরি রিভ অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যার। এবার প্রথমবারের মতো অংশ নিয়ে ওয়ালটন তাদের তিনটি সিরিজের ল্যাপটপেই দিচ্ছে ছাড়। আই লাইফ জেইডিএয়ার ১৪ ইঞ্চি মনিটরের দাম ১৬ হাজার ৪৯৯ টাকা। কি-বোর্ডযুক্ত বিজয় ট্যাবলেট কম্পিউটার পাওয়া যাচ্ছে আট হাজার টাকায়। সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এই মেলা চলবে। মেলার টিকিটের মূল্য ৩০ টাকা। স্কুল শিক্ষার্থীদের ইউনিফর্ম থাকলে বিনামুল্যে প্রবেশ করা যাবে। বৃহস্পতিবার শুরু হওয়া ল্যাপটপ মেলা আজ ১৬ ডিসেম্বর শেষ হবে।

মালয়েশিয়াতে বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা ভিডিও

মালয়েশিয়াতে বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা  ভিডিও
ত্রিশ লাখ শহীদের আত্মত্যাগের আর দুই লাখ সম্ভ্রমহারা মা-বোনের বিনিময়ে অর্জিত বিজয়ের ৪৬ বছর পূর্ণ হল আজ। মুক্তির জয়গানে মুখর কৃতজ্ঞ বাঙালি জাতি শ্রদ্ধাবনত চিত্তে আজ স্মরণ করছে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান সেই অকুতোভয় বীরদের, যাদের আত্মত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত হয়েছে এ বিজয়।



৭১ এর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা স্বরূপ University Malaysia Sarawak (UNIMAS) এর অধ্যয়নরত বাংলাদেশী শিক্ষার্থীরা মিলে একটি শুভেচ্ছা ভিডিও বানিয়েছে। ওই ভিডিওতে বাংলাদেশী শিক্ষার্থীরা ছাড়াও ছিল ইন্দোনেশিয়া,  সৌদি আরব, মালয়েশিয়া লোকাল , চীন, সারাওয়াকীয়ান শিক্ষার্থীরা । যারা তাদের নিজেদের ভাষায় বাংলাদেশ , বাংলাদেশএর খাবার এবং বাংলাদেশের মানুষ সম্পর্কে কথা বলেছে ।
পুরো ভিডিওটি ধারন করা হয়েছে ইউনিভার্সিটি মালয়েশিয়া সারাওয়াক (ইউনিমাস) এর বিভিন্ন লোকেশনে ।



Best wishes for Bangladesh victory day 2016 এই শিরোনামে ভিডিও র প্রথমে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ ও বিজয়ের আনন্দ দিয়ে শুরু হলেও শেষে বাংলাদেশের আগামী প্রজন্ম দেশ যোদ্ধারা তাদের মতামত তুলে ধরে ।

ভিডিও সম্পর্কে ইউনিম্যাসের টিউটর মোহাম্মাদ মাহবুবুর রাহমান জানান, " সাজ্জাদ অসাধারন একটা কাজ করেছে । আমি নিজেকে গর্বিত মনে করছি এই ভিডিওর একজন শুভেচ্ছা বক্তা হতে পেরে । এই ভিডিও থেকে নতুন প্রজমের অনেক কিছু শেখার আছে । বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়ে যাবে এই আশা সকলের "



ইউনিম্যাসের শিক্ষার্থী সিফাত উল্লাহ বলেন, "এই উদ্যোগ এটাই প্রমান করে যে আমরা বিদেশে থাকলেও আমরা বাংলাদেশকে ভুলিনি এবং  এই ধরনের উদ্যোগ সবসময়  অব্যাহত থাকবে আমি এইটাই আশা রাখি  "

ভিডিওর কনসেপ্ট এবং পরিচালনা করেছেন ফেনীর ছেলে তরুন পরিচালক , ইউনিভার্সিটি মালয়েশিয়া সারাওয়াক (ইউনিমাস)  এর শিক্ষার্থী মোঃ সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরিী

আর্থিকভাবে সহযোগিতা করেছেন, মালয়েশিয়ান প্রবাসী মোঃ আতিকুর রহমান , ডিরেক্টর Ciptor Asia SDN BHD

ভিডিওটি দেখার জন্য ক্লিক করুন এখানে ঃ https://youtu.be/GtpiRlDLvCs


গেইম ইঞ্জিন : Make games of your own!

গেইম ইঞ্জিন : Make games of your own!
প্রথমত  বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা । মনে হচ্ছে জি আর+ এ প্রায় এক যুগ পর পোস্ট করছি :P ।
যাই হোক আজকে গেম লাভারদের জন্য পোস্ট।


অধিকাংশ গেমাররা নিশ্চয়ই গেম ইঞ্জিন সম্পর্কে জানেন।আবার নতুনরা হয়তো জানেন না।
গেইম ইঞ্জিন মুলত হলো এমন একধরণের সফটওয়্যার যা দ্বারা গেম বানানো যায়। গেইম বানাতে হলে এটি নিশ্চয়ই লাগবে।আরেকটা জিনিস লাগবে যেটা হলো একটু প্রোগ্রামিং নলেজ। C# (সি শার্প) এক্ষেত্রে বেশি দরকার হয়। কিছু মাথা খাটালে আসলে নিজে ঘরে বসে গেইম বানানো যায়। এই প্রক্রিয়া কে বলা হয়ে থাকে গেম ডেভলাপিং।

গেম ডেভলাপিং এর জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় সফটওয়্যার হলো Unity 3D
এবং Unreal Engine. ইউনিটিরর ব্যাবহার বেশি এক্ষেত্রে । অনেক জনপ্রিয় গেমই এটি দিয়ে তৈরি।
অফিসিয়াল ওয়েবসাইট  থেকে এটি ডাউনলোড দিতে পারেন । উল্লেখ্য যে পেইড ভার্শন গুলো ব্যাবহার করতে হলে অনেক টাকার দরকার। এর এন্টারপ্রাইজ ভার্শন টির মুল্য ১০০০ ডলারের উপরে।
রিসেন্টলি কিছু বাংলাদেশি গেম খুব ভালো  সাড়া পেয়েছে।হয়ত খুদ্র ডেভলাপার থেকে বড় প্রতিষ্ঠান এর মালিকও হয়ে যেতে পারেন আপনি। বলা যায় না :P।।। 

ছোট গেমস মজা বেশি(পর্ব-২৭): সময় কাটানোর জন্য তিনটি গেম

ছোট গেমস মজা বেশি(পর্ব-২৭): সময় কাটানোর জন্য তিনটি গেম
আসসালামু আলাইকুম। সবাইকে জানাচ্ছি বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা। ছোট গেমস মজা বেশি সিরিজটি আজ বিশতম পর্বে পৌছাল। আশা করি সবাই ভাল আছেন। আমিও আলহামদুলিল্লাহ, ভাল আছি।

সতর্কতা

এই সিরিজের গেমগুলো সকলের ভাল লাগবে না। প্রফেশনাল গেমারদের জন্য মূলত এটি নয়। এখানে কেবলমাত্র ছোট এবং মজার গেমগুলোই পাবেন। বড়সড় কিছু পাবেন না। এই সিরিজে সব বয়সের উপযোগী গেমই (অর্থাৎ, যেগুলো Everyone রেটিং পাওয়ার যোগ্য) কেবল পোস্ট করা হয়।
এখন যদিও বাংলাদেশ তৃতীয় প্রজন্মের ইন্টারনেটের আওতায় চলে এসেছে, তবু আমাদের অনেককেই এখনো এমন গতির ইন্টারনেট চালাতে হয়, যা দেখে শামুকও না হেসে পারবে না। আমরা কোন ধনী দেশ না। বড় বড় গেমগুলো কিনে খেলার সামর্থ্য তো দুরে থাক, অনেকেই ৫০ টাকা দিয়ে পাইরেটেড ডিস্কও কেনার সামর্থ্য রাখি না। কিন্তু যুগের চাহিদায় হয়ত একটা মোবাইল বা কম্পিউটার বাসায় আছে। তাই সেই কম্পিউটার বা মোবাইলে অবসরে ছোট ছোট গেমগুলো অন্তত যেন খেলতে পারি, সেজন্যই এই সিরিজ।

আজকের গেমগুলো

আজকে থাকছে দুই-এক মেগাবাইট সাইজের ছোট ছোট কিছু ফ্ল্যাশ গেম। এগুলোর ডেভেলোপার মিনিক্লিপ। এই গেমগুলো কাজের ফাঁকে খেলতে পারেন। আজকের গেমগুলো হল-
১। Monkey Lander
২। Bubble Trouble
৩। Snake

প্রয়োজনীয় সিস্টেম

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আমলের কম্পিউটারেও চলবে বলে আশা করা যায়। অতএব, এটা নিয়ে চিন্তার কিছু নাই।

Monkey Lander সম্বন্ধে

Play MonkeyLander
গেমটিতে একটি বানরকে ল্যান্ডিং করাতে হবে সঠিক ভাবে। বানরটিকে একটি আকাশযানে চড়িয়ে দেওয়া হবে। প্রথমে সবগুলো কলা এবং অতিরিক্ত পয়েন্টের জন্য অন্যান্য ফলগুলো সংগ্রহ করে নিন। এরপর ধীরে ধীরে ল্যান্ডিংয়ের জায়গায় ল্যান্ড করতে হবে। দ্রুত করলে ক্রাশ করবেন। আর আপনার আকাশযানের জ্বালানি কোকোনাট ফুয়েল যেন শেষ হয়ে না যায়, সেদিকে সাবধান! যত কম জ্বালানি খরচ করবেন তত বেশি বোনাস!

ডাউনলোড

Bubble Trouble সম্বন্ধে

Play BubbleTrouble
কিছু বাবল খুব সমস্যার সৃষ্টি করেছে। আপনার কাজ হল বাবল গুলোকে ধ্বংস করে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া। সহজ কাজ, কিন্তু খুব সহজও না! সাবধান! প্রথম ৫-৬ টি লেভেল খুব সহজেই শেষ করতে পারবেন। তারপর শুরু হবে মারাত্মক কঠিন সব লেভেল!

ডাউনলোড

Snake সম্বন্ধে

Play Snake
আমাদের শৈশব কিন্তু জিটিএ ফাইভ খেলে কাটেনি। অতীতের কথা মনে আছে? আমি এখনও ছোট, ১৫ বছর। কিন্তু যখন আরো ছোট ছিলাম, তখন এই স্নেক জেনজিয়া খেলাই যে কি মারাত্মক অনুভূতি ছিল, সেগুলো কি ভোলা যায়? মনে আছে, এপার্টমেন্ট লেভেলটা শেষ করতে কি কষ্ট করেছিলাম। মাসের পর মাস সাধনার পরে অ্যাপার্টমেন্ট লেভেলসহ ক্যাম্পেইন শেষ করেছিলাম। আর নো মেজ স্টেজে ৮ লেভেলে একটা বোনাস পয়েন্ট সবচেয়ে দ্রুত খেতে পারলে ৫০৪ পয়েন্ট হত। সেখানে প্রথম ৩০০০, প্রথম ৪০০০ আর প্রথমবার ৫০০০ করাগুলো ছিল বিরাট সব অর্জন। সেগুলো কি স্মৃতির পাতা থেকে মুছে ফেলা যায়? সেই দুই রঙের দুনিয়াটা কি রঙিন হয়েই না তখন আমাদের চোখে ধরা দিত! সেই স্মৃতি কি কোন দিন হারিয়ে যায়? আমি আজ যেই স্নেক গেমটা দিব, সেটা দুই রঙের দুনিয়া না, রঙিন দুনিয়া। তবু সেই রঙগুলো মনে আর আগের মত রঙিন হয়ে ধরা দিবে না, জানি। তবু অসময়ে খেলতে পারেন এই গেমটি।

ডাউনলোড

বিদায়!

আজকের পোস্ট এই পর্যন্তই। গেমগুলো খুব ভাল না হলেও যাদের উদ্দেশ্যে এই পোস্টটা লেখা, তাদের খারাপ লাগবে না আশা করি। সামনে ইংশাআল্লাহ আরো ভাল এবং সুন্দর গেম দিতে পারব। পোস্টটি ভাল লাগলে কমেন্ট করে আমাকে উৎসাহিত করতে ভুলবেন না। অথবা খারাপ দিক গুলোও তুলে ধরবেন, যেন ভবিষ্যতে আরো ভাল কিছু দিতে পারি। পোস্ট সম্বন্ধে আপনাদের মত প্রকাশের জন্যই তো কমেন্ট বক্স, তাই না?
তো আজকের পোস্ট আমি এখানেই শেষ করছি। আল্লাহ হাফেজ।
সৌজন্যে: গ্রিন রেঞ্জারস+

তোমার ছবিতে লাগাও বিজয়ের ফিল্টার!

তোমার ছবিতে লাগাও বিজয়ের ফিল্টার!
আসসালামু আলাইকুম। বিজয়ের শুভেচ্ছা।
বিজয়ের মাস ডিসেম্বর। এই মাসেরই ১৬ তারিখে আমরা ৯ মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের পর লাল সবুজের পতাকা অর্জন করেছিলাম।
তাই এই মাসে গ্রিন রেঞ্জারস+ এডমিন প্যানেলের পক্ষ থেকে সবার জন্য থাকছে বিশেষ উপহার, বিজয় দিবস ফিল্টার/ব্যাজ।
সাধারন পিএইচপি, এইচটিএমএল, সিএসএস এবং জাভাস্ক্রিপ্ট দিয়ে তৈরি করা হয়েছে।
ইমেজ ম্যানিপুলেশনে পিএইচপি ইমেজ জিডি লাইব্রেরি (ওপেন সোর্স ভার্সন) ব্যাবহার করা হয়েছে।
আশা করি সবাই ব্যাজটি লাগিয়ে বিজয়ের চেতনা নিয়ে পালন করব বিজয় দিবস ২০১৬।
আবারো বিজয় দিবসের শুভেচ্ছা।

ছোট গেমস মজা বেশি(পর্ব-২৬): অরণ্যের সেই ছেলেটি!

ছোট গেমস মজা বেশি(পর্ব-২৬): অরণ্যের সেই ছেলেটি!
আসসালামু আলাইকুম।
অবশেষে! বার্ষিক পরীক্ষার যন্ত্রণাময় ১৫ টি দিনের এই সমাপ্তি লগ্নে পৌছালাম। আবার অবতীর্ণ হলাম আমার স্বরূপে!
কেমন আছেন সবাই? ভাল তো? আমি কেমন আছি বুঝতেই পারছেন, বার্ষিক শেষ হল মাত্র!
মাঝে মাঝে ভাবি, ইশ! যদি এই পড়াশোনাগুলো, এই পরীক্ষাগুলো না থাকত! কেমন হত সেই জীবন! আজ যার কথা বলছি তার কিন্তু এই যন্ত্রণা গুলো ছিল না। সে ছিল এক স্বাধীন বালক। অরণ্যেই যার বেড়ে ওঠা!

আজকের গেম

আমার ধারণা এর মধ্যেই অনেকেই বুঝে গেছেন, আজকের গেম কি নিয়ে। হ্যাঁ, ঠিক(অথবা ভুল) ধরেছেন। আজকের গেম দি জাঙ্গল বুক! নিশ্চয়ই মোগলিকে মনে রেখেছেন সবাই! মানুষের ছেলে মোগলি, অরণ্যে হারিয়ে গিয়ে যে ছেলেটি বড় হয়েছিল তার নেকড়ে মায়ের কাছে, নেকড়ে ভাইদের সাথে হেসে-খেলে এবং বাঘিরার সাথে ঘুরে। এভাবেই দিন কাটছিল। এরপর একদিন হিংস্র বাঘ শের-এ-খানের নজর পড়ল মোগলির দিকে। আর মোগলিকে নিয়ে বাঘিরা মোগলির ইচ্ছার বিরুদ্ধে রওনা হল মানুষের গ্রামের দিকে,.....
Image result for the jungle book Sega

গেম সম্বন্ধে

মোগলির গল্প যেভাবে এগিয়েছে, গেমটিও এগিয়েছে সেভাবেই। মোগলির সব বন্ধুরা বাঘিরা, বালু এবং ছোট্ট হাতির শাবক কিংবা দুষ্ট বানররা, সাপ ময়াল কা, আর শেরে খান সবাই গেমে আছে। বাঘিরাকে খুঁজে বের করা, অথবা বালুর পেটে চেপে বসে পার হওয়া নদী, আর সম্মুখীন হওয়া গর্জনশীল অতীতের... গেমটি খেলতে খেলতে হারিয়ে যাবেন আপনার অতীতের দিনগুলোতে। মনে পড়বে অনেক কথা!

এক নজরে

রিলিজের তারিখ: 1993
সিরিজ: The Jungle Book
Platforms: সুপার নিনটেনডু এন্টারটেইনমেন্ট সিস্টেম, সেগা জেনেসিস এবং আরো
নির্মাতা: Virgin InteractiveVirgin GroupEurocomSyrox Development
প্রকাশক: Virgin InteractiveVirgin GroupMajesco

গেমটি খেলুন

গেমটি বিভিন্ন প্লাটফর্মে রিলিজ পেয়েছে। প্লাটফর্ম ভেদে কিছুটা ভিন্নতাও আছে। এখানে সেগা ভার্সন দেওয়া হল।

এখানে যান...

খেলার নিয়ম

অ্যারো কি দিয়ে নড়াচড়া করুন। Z দ্বারা অস্ত্র  বদলান, X দ্বারা প্রতিপক্ষকে অস্ত্র ছুঁড়ে মারুন  ও C দ্বারা লাফ দিন। গেমটির সেটিংস থেকে সহজ মধ্যম বা কঠিন নির্বাচন করে নিন। সে অনুযায়ী প্রতি লেভেলে প্রথমে নির্দিষ্ট সংখ্যক ডায়ামন্ড খুঁজুন, আর তারপর পূর্ণ করুন লেভেলের অবজেক্টিভ!
গেমটির পূর্ণ মজা পেতে হলে মধ্যম বা কঠিন লেভেলে খেলুন। F5 চেপে কম্পিউটারে গেম সেভ রাখতে পারবেন। F8 পেপে লোড করে সেখান থেকে খেলা যাবে আবারো।

বিদায়!

আজ কেন জানি আর লিখতে ইচ্ছা হচ্ছে না। অনেকদিন লিখি না তো। তাই খুব ছোট হল। তো এখন তাহলে বিদায় নিই।
সবাই ভাল থাকুন, সুস্থ থাকুন এই প্রত্যাশায় শেষ করছি। আল্লাহ হাফেজ। 

জিল্যাব - ১ :: পেন্সিল ব্যাটারি দিয়ে পাওয়ার ব্যাঙ্ক বানাও

জিল্যাব - ১ :: পেন্সিল ব্যাটারি দিয়ে পাওয়ার ব্যাঙ্ক বানাও
এই পোস্টের ইংরেজি সংস্করণ দেখতে আমাদের নতুন ইংরেজি টেক ব্লগ জিল্যাবে-র পোস্টের ফিডে যান :) 
অথবা এখানে ক্লিক করে এই পোস্টের ইংরেজি সংস্করণ দেখুন




কেমন আছো বন্ধুরা?
জি ল্যাবের প্রথম বাংলা পোস্টে তোমাদের স্বাগতম।
আশা করি আমি তাওসিফ তোমাদের সাথেই থাকবো।
তোমাদের কি মনে আছে আমরা ছোটো থাকতে পেন্সিল ব্যাটারি দিয়ে মটর চালাতাম :p আর নিজেদের পৃথিবীর সবচেয়ে বড় বিজ্ঞানি ভাবতাম :p
একটা পেন্সিল ব্যাটারি, যার সাইজ ব্যাবসায়িক ভাবে ডাবল এ বলা হয়, এর রেটেড ভোল্টেজ ১.৫ ভোল্ট।
আর আমরা এরকম চারটি ব্যাটারি দিয়ে একটা সাধারণ মোবাইল বা ইউএসবি ডিভাইজ চার্জ করার মতো এম্পিয়ার এবং ভোল্ট পেয়ে যাবো।
সিরিজে আমরা চারটা ডাবল এ সাইজের ব্যাটারি সেটাপ করলে আমরা ৬ ভোল্ট এবং ১.৫ এম্পিয়ার কারেন্ট পাবো।
এখন দেখা যাক আমরা কিভাবে এই পাওয়ার ব্যাঙ্কটি বানাবো।
আমাদের কিছু ইলেক্ট্রনিক কম্পোনেন্ট এবং হার্ডওয়ার লাগবে যা খুবই সহজলভ্য।

  1. কিছু স্ক্রু
  2. তার
  3. ইউএসবি ক্যাবল বা পোর্ট
  4. চারটে ডাবল এ সাইজের পেন্সিল ব্যাটারি
  5. ১ বর্গ ফিটের কার্ডবোর্ড
  6. ধাতব বক্স

একটা ডাবল এ সাইজের পেন্সিল ব্যাটারির দাম ১২ টাকা, এখানে আমাদের লাগবে চারটি। আমরা টাকা বাচাতে চাইলে রিচার্জেবল ডাবল এ সাইজের ব্যাটারি ইউজ করতে পারি।
কিন্তু তার আগে আমাদের লাগবে ব্যাটারি কেস।
আমরা অনলাইন শপে সহজেই এই ব্যাটারি কেইসিং খুঁজে পেতে পারি। কিংবা পুরনো খেলনা হতে ভেঙ্গে নিতে পারি।
কিন্তু আমার মনে হয় আমরা সহজেই কার্ড বোর্ড, স্টাপলার পিন এবং আঠা দিয়ে কেসিং বানাতে পারবো, যদিও এটা রিলায়েবল বা সুবিধার না।

এবার আমাদের ব্যাটারিগুলোর মাঝে সিরিজ কানেকশান তৈরি করতে হবে, যেটা সবাই পারবে আশা করি নিচের ছবি দেখার পর, বা আমি এই কাজটা ভিডিওতে করে দেখিয়েছি সেটা দেখতে পারো।


উপরের ছবিতে আমি কিভাবে সিরিজ কানেকশান হবে তা ব্যাখ্যা করে দিয়েছি।
নিচের ছবিতে আমি একটা ইউএসবি ক্যাবলের নানা অংশের নাম উল্লেখ করেছি জানার জন্য।





USB Cable Configuration


এবার আমাদের এই পাওয়ার ব্যাঙ্কের সাথে কানেক্ট করার জন্য ইউএসবি জ্যাক বা ক্যাবল তৈরি করতে হবে।
এডাপ্টার বানাতে, একটা ইউএসবি ক্যাবল নাও, ইউএসবি জ্যাক কেটে ফেলো( মাইক্রো বি - না), তুমি চারটা তার দেখতে পাবে।
লাল, সবুজ, সাদা, এবং কালো।
সবুজ এবং সাদাটি ডাটা ট্র্যান্সফার করার জন্য।বাকিগুলো পাওয়ার ক্যাবল।
এখানে লালটি পজিটীভ এবং কালোটি নেগেটিভ।


USB Cable Inside

তুমি যদি লাল কালো তার না পাও তবে মাল্টিমিটার বা এলইডি দিয়ে পজিটীভ নেগেটিভ বের করে নিতে পারো।
এবার লাল তারটি ব্যাটারির সিরিজ প্রান্তের পজিটীভ প্রান্তে এবং কালোটি মেগেটিভ প্রান্তে যুক্ত করে কেসিং-এ বসালেই আমাদের পাওয়ার ব্যাঙ্ক প্রস্তুত।
এটা একটা ৬ ভোল্ট ১.৫ অ্যাম্পিয়ার পাওয়ার ব্যাঙ্কের কাজ করবে।


#DIY_EveryWeek




Tags: 
DIY, USB, Power Bank, Simple Power Bank, Pencil Batteries Power Bank, Easy Power Bank, Glab, DIY Power Bank From Pencil Batteries