প্রযুক্তি হোক বাংলায়, ভাষা হোক উন্মুক্ত, মাতৃভাষায় হোক প্রযুক্তি

দিন আসলেই বদলে গেছে। সেই একচেটিয়া ইংরেজির দিন আর নেই। এসেছে ইউনিকোড।
প্রায় সব ভাষা এর অন্তর্ভুক্ত।, তেমনি বাংলা।

সকল ভাষার সাথে পাল্লা দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে যেন প্রযুক্তির বাংলা ।

ইমেইল, টুইট, স্ট্যাটাস, ওয়েবসাইট, ব্লগিং, ব্যাংকিং সব হচ্ছে বাংলায়।


ভাষা ও প্রযুক্তিবিদরা একে বলছেন বাংলা ভাষার বিপ্লব হিসাবে।

উইকিপিডিয়া অনুসারে, বর্তমানে প্রায় ২৩ কোটি ২০ লাখ মানুষ বাংলায় কথা বলেন।


বাংলাদেশের রাষ্ট্রভাষা বাংলা এবং ভারতে ২য় সর্বাধিক কথিত ভাষা বাংলা।

আন্তর্জাতিক ভাষা ও বর্ণ সংকেতায়ন ব্যবস্থা “ইউনিকোড” –এ বাংলা যুক্ত হওয়ার পর খুলে জায় সম্ভাবনার দুয়ার।


গুগল তাদের ১৩০টি ভাষার সাথে বাংলাও যুক্ত করেছে।

জিমেইলের ১২ টি ফোনেটিক ভাসার সাথে আছে বাংলা।

ফলে কেউ ইংরেজিতে বাংলা উচ্চারণে কিছু লিখলে তা বাংলা হরফে পরিণত হবে।


১ম বাংলা সফটওয়্যার ছিল “বিজয়” যেটা ১৯৮৭ সালে বের হয়।


একই নামে প্রথম কীবোর্ড চালু হয় ১৯৮৮ সালে।


১৯৫২ সালে ছাত্র জনতার রক্তের বিনিময় আমরা পেয়েছি এই বাংলা ।


আসুন, আমরাও প্রযুক্তিতে ব্যবহার করি বাংলা । তাদের রক্তের মূল্য দেই।


সার্চ ইঞ্জিন, ইমেইল, ফেসবুক, টুইটারে ব্যবহার করি বাংলা।

“Ami Bnglay Ktha Boli” না লিখে লিখি “আমি বাংলায় কথা বলি”



© তাওসিফ তুরাবি


শেয়ার করুন

লেখকঃ

আমি তাওসিফ তুরাবি, অনলাইনাম (অনলাইন + নাম) ব্লগার তাওসিফ। এখন, ২০১৬ পর্যন্ত আমি ১৬ বছরের এক কিশোর। পড়াশোনা করি শহীদ পুলিশ স্মৃতি কলেজে। টেক ব্লগ লিখতে ভালবাসি। সাইন্স ফিকশন আর গল্প লিখতে পছন্দ করি।  জিআর+ ব্লগের এর একজন প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডমিন।
আমাদের একটা ওয়েব ডেভেলপার ফার্ম আছে যার নাম জিআর+ আইটি বাংলাদেশ
এছাড়া আমার ব্যাক্তিগত ব্লগ রয়েছে। আমার ফেসবুক আইডিতে আমার সাথে সর্বক্ষণ যোগাযোগ করতে পারবেন। 


পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট