এইচটিএমএলঃ পর্ব- ১ঃ শুরু করবো এইচটিএমএল ও ব্রাউজারের এর জন্ম কথা দিয়ে

প্রথম অধ্যায়
শুরু করবো এইচটিএমএল ও ব্রাউজারের এর জন্ম কথা দিয়ে,

সম্পূর্ণ নতুনদের কোর্স, আমার লেখা ভালো লাগলে ব্লগ দেখে আসবেন।

১৯৮০ সালে HTTP এর উদ্ভাবকএবং ইউরোপের সারন (CERN) এর গবেষক টিম বারনারস লী এই ভাষার প্রাথমিক রুপ দেন এবং এর উন্নতি দিন দিন বাড়তে থাকে। তিনিই এই ল্যাংগুয়েজের প্রোটোটাইপ তৈরি করেন
টিম বারনারস লী





প্রথমে কেবল একটি ডকুমেন্ট পেজ থেকে অপর একটি ডকুমেন্ট পেজ এ স্থানান্তর করা ছাড়া আর কিছু করা হত না।

কিন্তু ইন্টারনেটের জনপ্রিয়তা বাড়ার সাথে সাথে এইচটিএমএল এরও জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকে এবং উন্নতি ঘটতে থাকে।

HTML Language দিয়ে বানানো ডকুমেন্টকে ওয়েব পেজ বলা হয়। এসকল ওয়েব পেজ আলাদা ভাবে কম্পাইল বা ইন্টারপ্রেট করার প্রয়োজন নেই।

এই ওয়েবপেজ ওয়েব ব্রাউজার অথবা অন্যান্য HTML সমর্থিত সফটওয়্যার দিয়ে ওপেন করা যায়।
বর্তমানের জনপ্রিয় ওয়েব ব্রাউজার হল গুগল ক্রোম, মজিলা ফায়ারফক্স ,ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার,সাফারি ,অপেরা ইত্যাদি।




একটা কথা, এটি কিন্তু প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ বলা যায় না।এটি একটি মার্কআপ ল্যাঙ্গুয়েজ।
এটি কোনও মেশিন কোড তৈরি করতে পারবেনা।



ওয়েবপেজ তৈরিঃ এইচটিএমএল লিখব কীসে?

                                                                                 
CoffeeCup HTML Editor,

Google Web Designer



পাশের সফটওয়্যার গুলো ছাড়া তুমি নোটপ্যাড ব্যবহার করতে পারো।


নোটপ্যাড দিয়ে শুধু তুমি টাইপ “All Files” এবং Encoding “utf-8” করে দাও।

আর নামের শেষে .html যোগ করো।


মজার ব্যাপার হল, এইচটিএমএল এমন একটি ল্যাঙ্গুয়েজ যেটা দিয়ে তুমি নিজেই নতুন কিছু বানিয়ে ফেলতে পারো।এই ল্যাঙ্গুয়েজ সি++ ,জাভা ,জাভা অ্যাপলেট, জাভা স্ক্রিপ্ট এবং আর অনেক কিছু সমর্থন করে।


ওয়েবপেজ বা এইচটিএমএল ডকুমেন্ট স্থির হতে পারে, কিন্তু নানা রকম ট্যাগ, অ্যাট্রিবিউট ও স্ক্রিপ্ট দিয়ে একে প্রাণবন্ত করে তোলা যায়।

ট্যাগ ও অ্যাট্রিবিউট গুলোর মাধ্যমে,
·         সাধারণ টেক্সট লিখতে পারব।
·         টেক্সট ও পেজে রঙ যোগ করতে পারব।
·         বাটন তৈরি করতে পারব।
·         টেবিল তৈরি করতে পারব।
·         চার্ট তৈরি করতে পারব।
·         স্থির ও সচল ( .GIF) ছবি সংযোজন করতে পারব।
·         সাউন্ড ট্র্যাক ও ভিডিও সংযোজন করতে পারব।
·         হাইপারলিঙ্ক করতে পারব।
·         স্ক্রিপ্ট লাগাতে পারব।



ওয়েব পেজ প্রদর্শনঃ
ওয়েবপেজ প্রদর্শন করা হয় ওয়েব ব্রাউজার দিয়ে। ওয়েব ব্রাউজার হল একটি বিশেষ ধরনের প্রোগ্রাম সফটওয়্যার যা সার্ভার এক্সেস,ওয়েবপেজ প্রদর্শন, হার্ডড্রাইভ এক্সেস ও ডাটা ট্রান্সফার করতে পারে।


 ব্রাউজারের ইতিহাসঃ


প্রথম ইউনিক্স ওএস ভিত্তিক গ্রাফিক্স ব্রাউজার তৈরি হয় ১৯৯২ সালে। তারপর ১৯৯৩ সালে আমেরিকার NCSA (National Center for Super Computer Applications) এর মার্ক এন্দ্রিসন ও এরিক বিনা “মোজাইক” ব্রাউজার তৈরি করেন।এই ১৯৯৩ সালেই “মোজাইকের” ম্যাকিনটস ও উইন্ডোজ এর উপযোগী সংস্করণ প্রকাশিত হয়।


মোজাইক ব্রাউজার                            
নেটস্কেপ কমিউনিকেসন










১৯৯৪ সালের প্রথম দিকে মার্ক এন্দ্রিসন ও আর অনেকে NCSA ছেড়ে দিয়ে নেটস্কেপ কমিউনিকেশন প্রতিষ্ঠা করেন এবং “নেটস্কেপ নেভিগেটর” ব্রাউজার তৈরি করে বাজারজাত করেন।


এর পরের বছর, ১৯৯৫ সালে মাইক্রোসফট কোম্পানি “ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার” তৈরি করে বাজারজাত করে ব্রাউজার জগতে স্থান করে নেয়।






বর্তমানে সর্বাধিক জনপ্রিয় ব্রাউজার হল “গুগল ক্রোম”। এছাড়া অন্যান্য জনপ্রিয় ব্রাউজার গুলো হল,


·   অপেরা।
·         মোজিলা ফায়ারফক্স।
·         সাফারি।
·         ইয়ানডেক্স।
·         ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার।

                         
প্রত্যেকটি ওয়েব ব্রাউজারে থকে একটি বিশেষ ইন্টারপ্রেটার বা কোড ডিকোডার যা ওয়েবপেজের বিভিন্ন কোড,এঙ্কর,ইম্বেড ও অন্যান্য কন্টেন্ট অনুবাদ করে সরল একটি ওয়েবপেজ হিসাবে প্রদর্শন করে। 

আজ এই পর্যন্তই। আল্লাহ হাফেয। আমার ব্লগ।

শেয়ার করুন

লেখকঃ

আমি তাওসিফ তুরাবি, অনলাইনাম (অনলাইন + নাম) ব্লগার তাওসিফ। এখন, ২০১৬ পর্যন্ত আমি ১৬ বছরের এক কিশোর। পড়াশোনা করি শহীদ পুলিশ স্মৃতি কলেজে। টেক ব্লগ লিখতে ভালবাসি। সাইন্স ফিকশন আর গল্প লিখতে পছন্দ করি।  জিআর+ ব্লগের এর একজন প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডমিন।
আমাদের একটা ওয়েব ডেভেলপার ফার্ম আছে যার নাম জিআর+ আইটি বাংলাদেশ
এছাড়া আমার ব্যাক্তিগত ব্লগ রয়েছে। আমার ফেসবুক আইডিতে আমার সাথে সর্বক্ষণ যোগাযোগ করতে পারবেন। 


পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট