অটোম্যাটিক নাইট লাইট উইথ ট্রাঞ্জিস্টর


বাংলাদেশে বর্তমানে একটি বড় সমস্যা হল লোডশেডিং। শহরাঞ্চলে এটা বোঝা এখন তেমন একটা বোঝা না গেলেও গ্রামাঞ্চলে এটি বেশ যন্ত্রনাদায়ক হয়ে ওঠে।



লোডশেডিংএর মুল কারন হল বিদ্যুতের সরবরাহের ঘাটতি। এই ঘাটতি কতদিনে কাটিয়ে ওঠা যাবে তা হয়তো নিশ্চিত করে বলা যাবে না। তবে আমরা কিছু দিক থেকে সচেতন হলেই এই ঘাটতি আর নাও থাকতে পারে।



আর এই সচেতনতা অনেকের মাঝে থাকে না। অনেকেই ফ্যান, বাতি, টেলিভিশন ইত্যাদি অন করে চলে যান। আর রাস্তার বাতি? হ্যাঁ, রাস্তার বাতি বা বাড়ির সামনের বাতি অনেক সময় আমরা বন্ধ করতে ভুলে যাই।

এতে আমাদের যেমন আমাদের বিদ্যুৎ বিল বেরে যায়, তেমনি অনেক স্থানে বিদ্যুতের ঘাটতি দেখা দেয়।

তাই আমরা কেবল এককালীন খরচ করে, তাও তেমন বেশি না, এই বিলের ঝামেলা থেকে মুক্ত হতে পারি।

তাই আমাদের এই সার্কিট তৈরি করা। এটিতে মত মিলিয়ে ৩ ডলার বা প্রায় ৩৫৮ টাকা খরচ পরে।



আর এলডিআর হল এমন একটি রিসিস্টর যা আলক সংবেদী। এর ওপর আলো পরলে এর রোধ কমে যায়, এবং আলোর অনুপস্থিতিতে এর রোধ অনেকখানি বেরে যায়।

একটি সাধারণ এলডিআর এর ওপর আলো পরলে এর রোধ কমে ১ কিলো ওহমের নিচে আসে, আর আলো না থাকলে ১ মেগা ওহম বা তারও ওপর থাকে।


LDR


এই সার্কিট একটি এনপিএন ট্রানজিস্টার বেস করে বানানো হয়েছে।

পিএনপি ট্রানজিস্টার নেগেটিভ কারেন্ট কালেক্ট করে এমিট করে। একে সুইচ করতে পজিটিভ কারেন্ট দরকার হয়।

তাই এখানে এলডিআর কে পজিটিভ বায়াস ও ভেরিয়াবল রিসিস্টর বা পট কে নিগেটিভ বায়াসে দেওয়া হয়েছে। যখন এলডিআরে আলো পরে তখন রোধ কমে গিয়ে বিদ্যুৎ প্রবাহ বেড়ে যায় ও নিগেতিভ কারেন্ট ওভাররাইড হয়ে ট্রানজিস্টার সুইচ হয়ে যায়।



এতে এটি নাইট সেন্সর হিসেবে কাজ করে। এবার যদি এলডিআর নিগেতিভ ও পট পজিটিভ বায়াসে দেওয়া হয় তবে এটি লাইট সেন্সর বা ডে সেন্সর হিসেবে কাজ করবে।



















এখানে এলইডি এর স্থানে রিলে সুইচ স্থাপন করা হয়েছে।



যে যে কম্পোনেন্ট ব্যাবহার হয়েছে,

  1. এলইডি
  2. ১০০কিলো ওহম পটেনশিওমিটার
  3. এলডিআর
  4. বিসি৫৪৭ ট্রাঞ্জিস্টর
  5. ৬ ভোল্ট সাপ্লাই
  6. ৪৭০ ওহম রিসিস্টর
  7. এলইডি
  8. রিলে সুইচ
  9. ৪০০৭ পিএন ডায়োড


রেফারেন্সঃ



শেয়ার করুন

লেখকঃ

আমি তাওসিফ তুরাবি, অনলাইনাম (অনলাইন + নাম) ব্লগার তাওসিফ। এখন, ২০১৬ পর্যন্ত আমি ১৬ বছরের এক কিশোর। পড়াশোনা করি শহীদ পুলিশ স্মৃতি কলেজে। টেক ব্লগ লিখতে ভালবাসি। সাইন্স ফিকশন আর গল্প লিখতে পছন্দ করি।  জিআর+ ব্লগের এর একজন প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডমিন।
আমাদের একটা ওয়েব ডেভেলপার ফার্ম আছে যার নাম জিআর+ আইটি বাংলাদেশ
এছাড়া আমার ব্যাক্তিগত ব্লগ রয়েছে। আমার ফেসবুক আইডিতে আমার সাথে সর্বক্ষণ যোগাযোগ করতে পারবেন। 


পূর্ববর্তী পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট