পুরনো হেডফোনকে বানাও ক্লিপ মাইক্রোফোন!

আমাদের সবারই কিন্তু হেডফোন আছে।
স্বাভাবিক, স্মার্টফোন আছে যখন, একটা হেডফোন থাকাও স্বাভাবিক। কারন একটা হেডফোন কিন্তু একটা স্মার্টফোনকে কমপ্লিফাই করে। 
আর হেডফোন থাকা মানেই নস্ট হয়ে যাওয়া।
আমরা কিন্তু আমাদের নস্ট হেডফোনটা রিসাইকেল করে একটা ক্লিপ মাইক বানিয়ে নিতে পারি।
হেড ফোন নানা ভাবে নস্ট হতে পারে , যেমন স্পীকার নস্ট হয়ে যাওয়া, তার ছিড়ে যাওয়া, জ্যাক নস্ট হয়ে যাওয়া। আমরা যারা পকেটে বা ব্যাগে রেখে গান শুনি তাদের জ্যাক নস্ট হয়ে যায়। কারণ ব্যাগে বা পকেটে রাখলে তারের উপরে প্রচুর স্ট্রেস পরে, যার কারনে তার ছিড়ে যায় বা ভেতরে কন্ডাক্টর(তামা)  ভেঙ্গে যায়।
আমাদের এই প্রোজেক্টের জন্য লাগবে এমন একটা নস্ট হেডফোন যার জ্যাক এবং মাইক্রোফোন ঠিক আছে, কিন্তু স্পীকার নস্ট হয়ে গেছে। এরকম একটি হেডফোন দরকার হবে আমাদের এই প্রোজেক্ট বানাতে।
আমরা আমাদের রেগুলার ক্লিপ মাইকগুলো অ্যান্ড্রয়েড ফোনে কনভার্টার ছাড়া ব্যাবহার করতে পারি না। কারন অ্যান্ড্রয়েড ফোন টিআরআরএস জ্যাক ব্যাবহার করে তার ব্রেকাউট ৪টা। আর সাধারন ক্লিপ মাইক ৩.৫ মিলিমিটার জ্যাকের হলেও টিআরআরএস নয়, টিএস হয়ে থাকে, যাকে আমরা মনো জ্যাক বলে থাকি। তাই এটি সরাসরি  স্মার্টফোনে কানেক্ট করা সম্ভব নয়।
তাই আমি এই পুরনো হেড ফোন থেকে ক্লিপ মাইকটি বানিয়েছি নিজের দরকারেই বলা যায়, কারন আমি স্মার্টফোন দিয়ে ভিডিও করি। আর আমার নিজের ভয়েজ পিক করার জন্য ক্লিপ মাইক প্রয়োজন। আর বারবার মাইক খুলে আরেকটা ভালো হেড ফোন লাগিয়ে আওয়াজ শুনে শুনে মনিটর করার চাইতে সরাসরি একটা জ্যাক মাঝে দিয়ে লাগিয়ে দিলাম। তাতেই কাজ হয়ে গেলো। অসাধারন একটা কনফারেন্স মাইক, কিংবা ভ্লগ ক্লিপ অন মাইক তৈরি হয়ে গেলো।
আমাদের এই ক্লিপ মাইকের বিশেষত্ব হলো, এটা স্মার্টফোনে ব্যাবহার করা যাবে, এবং পাশাপাশি এটার সাথে আলাদা একটি হেডফোন স্মার্টফোনে যুক্ত করা যাবে। আর বাটন দিয়ে রিমোট শাটারের কাজও করা যাবে।
তাহলে দেখো, একটা ফেলে দেয়ার মতো জিনিস দিয়ে আমরা কতো কিছু করতে পারছি!
দেখতে পারো ভিডিওতে কিভাবে বানিয়েছি।



ডায়াগ্রাম রয়েছে এখানে,

শেয়ার করুন

লেখকঃ

আমি তাওসিফ তুরাবি, অনলাইনাম (অনলাইন + নাম) ব্লগার তাওসিফ। এখন, ২০১৬ পর্যন্ত আমি ১৬ বছরের এক কিশোর। পড়াশোনা করি শহীদ পুলিশ স্মৃতি কলেজে। টেক ব্লগ লিখতে ভালবাসি। সাইন্স ফিকশন আর গল্প লিখতে পছন্দ করি।  জিআর+ ব্লগের এর একজন প্রতিষ্ঠাতা অ্যাডমিন।
আমাদের একটা ওয়েব ডেভেলপার ফার্ম আছে যার নাম জিআর+ আইটি বাংলাদেশ
এছাড়া আমার ব্যাক্তিগত ব্লগ রয়েছে। আমার ফেসবুক আইডিতে আমার সাথে সর্বক্ষণ যোগাযোগ করতে পারবেন। 


ইহাই নতুন পোষ্ট
পরবর্তী পোষ্ট